—: শ্রীগুর্ব্বাবির্ভাব প্রশস্তি :—

শ্রীগৌর-মণ্ডল মাঝে হাপানিয়া গ্রাম ।
যেথা অবতীর্ণ মোর প্রভু গুণ-ধাম ॥
পতিত-পাবনী গঙ্গা-তীর-সন্নিহিত ।
ন্যায়রত্ন-বিদ্যাপীঠ ভুবন-বিদিত ॥
সেথা বৈসে বিপ্রবর প্রশান্ত উদার ।
শ্রীউপেন্দ্রচন্দ্র বিদ্যারত্ন নাম যাঁর ॥
ভট্টাচার্য্যকুলরবি পরম বিদ্বান ।
নিরন্তর সেবাপর লক্ষ্মী-নারায়ণ ॥
তাঁর পত্নী গৌরিদেবী পরমপাবনী ।
মহাসাধ্বী জগন্মাতা প্রভুর জননী ॥

আঠারশ সতের শকে সৌরাশ্বিন মাস ।
শনিবার ছাব্বিশ দিবস পরকাশ ॥
বুধাদিত্য জীব-যোগে তুঙ্গগ্রহগণে ।
রামচন্দ্র-রাশ্যাশ্রয়ে বীরচন্দ্র-দিনে ॥
শুভঙ্করী পুষ্যা-অঙ্কে কার্ত্তিকী-নবমী ।
ধরণী হইলা ধন্য প্রভুপদ চুমি' ॥

উঠিল আনন্দরোল আচার্য্য-ভবনে ।
শঙ্খ-ঘন্টা হুলুধ্বনি দেয় নারীগণে ॥
আজানুলম্বিতভুজ পুরট-সুন্দর ।
দেবী অঙ্কে শোভে দিব্য-জ্যোতি মনোহর ॥
হেরিয়া পুত্রের মুখ মুগ্ধ পিতামাতা ।
মুগ্ধ হইল পুত্র-রূপে যত পতিব্রতা ॥
রামচন্দ্র জন্মক্ষণ স্মরি বিপ্রবর ।
রাখিলা পুত্রের নাম রামেন্দ্রসুন্দর ॥
অপূর্ব্ব বালক শোভা ব্যাপিল ভুবনে ।
অনিন্দ্য রামেন্দ্র চন্দ্র বাড়ে দিনে দিনে ॥

দেখিতে দেখিতে প্রভু লভিলা যৌবন ।
পরম সমৃদ্ধ করি ধন উপার্জ্জন ॥
দিব্য সুবিমল তনু মহাজ্যোতির্ম্ময় ।
নিরখি সকল লোক সাধ্বস মানয় ॥
বৈরাগ্য-ভাবিত-ভক্তি-পূর্ণ কলেবর ।
শৈবাল-পিহিত যেন মহাসরোবর ॥
মহাজ্ঞানী শুকপ্রায় বিরক্ত-প্রধান ।
হেরি পিতা-মাতা মনে চিন্তে অনুক্ষণ ॥
সন্ন্যাসী হইবে পুত্র না রহিবে ঘরে ।
মহাযোগী মহাত্যাগী লক্ষণ শরীরে ॥
অন্তরে আনন্দ বাহ্যে দুঃখ পরকাশ ।
কথোদিনে কৈলা বিপ্র শ্রীবৈকুন্ঠবাস ॥

ক্রমে ক্রমে প্রভু মোর আপনা প্রকাশি ।
স্বেচ্ছায় বন্ধন খণ্ডি হইলা সন্ন্যাসী ॥
গৃহত্যজি মায়াপুর করিলা বিজয় ।
শ্রীগৌরাঙ্গ-জন্মভূমি চিদানন্দময় ॥
শ্রীভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতী প্রভু-স্থানে ।
লইলা সন্ন্যাস দীন-উদ্ধার কারণে ॥
শ্রীভক্তিরক্ষক সংকীর্ত্তন-মূর্ত্তিধর ।
সেই হেতু গুরু নাম রাখিলা শ্রীধর ॥
পতিতপাবনরূপে ত্রিদণ্ডির বেশে ।
নাম-প্রেম বিতরিয়া বুলে দেশে দেশে ॥
দীন হীন পাপী তাপী সবারে উধারি ।
অমৃত সিঞ্চিলা বিশ্বে, যথা গৌরহরি ॥

জয় জয় পতিত-পাবন প্রভুবর ।
ন্যাসী চূড়ামণি ভক্তিরক্ষক শ্রীধর ॥
অসংখ্য প্রণতি তব পাদপদ্মে মোর ।
কৃপায় করহ নাশ কর্ম্মবন্ধ ঘোর ॥
ভবার্ণবে পড়ি শুধু হাবুডুবু খাই ।
এ অধমে উদ্ধারিয়া দেহ পদে ঠাঁই ॥
বন্দি আবির্ভাব তিথি শ্রীকৃষ্ণানবমী ।
যেঁহ ধন্য হইল প্রভুপাদপদ্ম চুমি ॥
বন্দি হাপানিয়া গ্রাম মহাতীর্থাবধি ।
বন্দি প্রভু শ্রীউপেন্দ্রচন্দ্রদয়াম্বুধি ॥
বন্দি নিত্য ভট্টাচার্য্য কুলাব্ধ-ভাস্কর ।
বন্দি বিদ্যারত্ন পুত্র রামেন্দ্রসুন্দর ॥
সাবধানে বন্দো মুই গৌরিদেবী মাতা ।
যাঁর অঙ্ক আলো করি প্রভু প্রকাশিতা ॥
প্রভুর সম্বন্ধধারী যতেক সুজন ।
সানন্দে বন্দনা করি সবার চরণ ॥
সবে কৃপা করি মোরে কর আশীর্ব্বাদ ।
নির্ব্বিঘ্নে হউক লাভ প্রভুর প্রসাদ ॥

 


 

← গ্রন্থাগারে ফিরে

ডাউনলোড (3.5 Mb)


 

সূচীপত্র:
আমার জীবন সদা
অক্রোধ পরমানন্দ
ভয়ভঞ্জন-জয়শংসন
বজহুঁরে মন
ভজ রে ভজ রে আমার
ভুলিয়া তোমারে
বিমল হেমজিনি
দশাবতারস্তোত্রম্
ধন মোর নিত্যানন্দ
দুর্লভ মানব জন্ম
এইবার করুণা কর
এ ঘোর সংসারে
এমন দুর্ম্মতি
গায় গোরা মধুর স্বরে
গোপীনাথ মম নিবেদন শুন
গুরুদেব! কৃপাবিন্দু দিয়া
শ্রীমদ্ভক্তিবিনোদবিরহদশকম্ (হা হা ভক্তিবিনোদঠক্কুর)
হরি হরয়ে নমঃ কৃষ্ণ
হরি হে দয়াল মোর
হে দেব ভবন্তং বন্দে
জনম সফল তা'র
জয় গুরু-মহারাজ (শ্রীগুরু আরতি-স্তুতি)
জয় গুরু মহারাজ করুণাসাগর (শ্রীশ্রীনিতাই-চৈতন্য-আরতি)
জয় জয় গুরুদেব করুণাসাগর (শ্রীগুরু-শ্রীগৌর-শ্রীনিত্যানন্দ-আরতি)
জয় জয় গুরুদেবের (শ্রীগুরু-আরতি)
জয় জয় গোরাচাঁদের (গৌর-আরতি)
জয় রাধামাধব
জয় রাধে, জয় কৃষ্ণ
জয়রে জয়রে জয় পরমহংস
কবে হবে বল সে দিন আমার
কবে শ্রীচৈতন্য মোরে
কে যাবি কে যাবি
কি জানি কি বলে
কিরূপে পাইব সেবা
মানস দেহ গেহ
নমো নমঃ তুলসী মহারাণি
নিতাই আমার দয়ার অবধি
নিতাই গুণমণি আমার
মন, তুমি তীর্থে সদা রত
মানস দেহ গেহ
ময়ূর-মুকুট
পরম করুণ
রাধা ভজনে যদি
করাধাকুণ্ডতট
রাধে রাধে গোবিন্দ
রাধিকা চরণ পদ্ম
সংসার-দাবানল (শ্রীগুর্ব্বষ্টকম্)
শ্রীগৌর-মণ্ডল মাঝে
শ্রীগুরুচরণ-পদ্ম
শ্রীগুরুপরম্পরা
শ্রীহরি-বাসরে হরি
শ্রীল-রঘুনাথদাস-গোস্বামি-শোচক
শ্রীমদ্রূপগোস্বামি-প্রভুর শোচক
শ্রীকৃষ্ণচৈতন্য প্রভু জীবে
শ্রীরূপমঞ্জরী-পদ
শ্রীশ্রীষড়্­গোস্বাম্যষ্টকম্
শ্রীশ্রীদামোদরাষ্টকম্
শ্রীশ্রীমদ্­গৌরকিশোরনমস্কারদশকম্
শুদ্ধ ভকত-চরণ-রেণু
সুজনার্ব্বুদরাধিতপাদযুগং
শুনহে রসিক জন
ঠাকুর বৈষ্ণবগণ
বৈষ্ণব কে ?
বৈষ্ণব ঠাকুর দয়ার
বন্দনা
যদি, গৌর না হ'ত
যশোদা-নন্দন কৃষ্ণ
যশোমতীনন্দন
যে আনিল প্রেমধন (বিরহ-গীতি)

বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥