শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


—: শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য :—

দশম অধ্যায়় : শ্রীব্রাহ্মণপুষ্কর, শ্রীউচ্চহট্টাদি দর্শন ও পরিক্রমা-ক্রম বর্ণন

(শ্রীশ্রীল সচ্চিদানন্দ ভক্তিবিনোদ ঠাকুর রচিত)

 

জয় গৌর নিত্যানন্দ অদ্বৈত সহিত ।
জয় গদাধর জয় শ্রীবাসপণ্ডিত ॥
জয় নবদ্বীপ শুদ্ধ প্রেম ভক্তি ধাম ।
জয় জয় জয় গৌর নিত্যানন্দ নাম ॥
শুনহে কলির জীব ছাড়ি জ্ঞান কর্ম্ম ।
নিতাই চৈতন্য ভজ ত্যজি ধর্ম্মাধর্ম্ম ॥
দয়ার সমুদ্র সেই গৌর নিত্যানন্দ ।
অকাতরে দিবে ভাই সার ব্রজানন্দ ॥
যামিনী প্রভাত হৈলে নিত্যানন্দ রায় ।
জীবেরে লইয়া ধাম ভ্রমণেতে যায় ॥
বলে দেখ জীব এই গ্রাম মনোহর ।
এখন ব্রাহ্মণপুরা ডাকে সর্ব্বনর ॥
ব্রাহ্মণপুষ্কর নাম সর্ব্বশাস্ত্রে কয় ।
হেথা যে রহস্য তাহা অতি গুহ্য হয় ॥
সত্যযুগে দিবদাস নামেতে ব্রাহ্মণ ।
গৃহ ত্যজি করে সর্ব্বতীর্থ দরশন ॥
পুষ্করতীর্থেতে তার হৈল বড় প্রীত ।
তথাপি ভ্রমিতে নবদ্বীপে উপস্থিত ॥
এইস্থানে রাত্রযোগে দেখিল স্বপন ।
হেথা বাস কর বিপ্র পাবে নিত্যধন ॥
এই স্থানে কুটীর বাঁধিয়া দিবদাস ।
বৃদ্ধ কালাবধি তেঁহ করিলেন বাস ॥
বৃদ্ধকালে চলিতে অশক্ত দ্বিজবর ।
ইচ্ছা হৈল এবে আমি দেখিব পুষ্কর ॥
চলিতে না পারে দ্বিজ করয় ক্রন্দন ।
আর না পাইব আমি পুষ্কর দর্শন ॥
তখন পুষ্কররাজ সদয় হইল ।
দ্বিজরূপে দিবদাসে দরশন দিল ॥
দিবদাসে বলে বিপ্র না কর ক্রন্দন ।
তোমার সম্মুখে এই কুণ্ড সুশোভন ॥
এই কুণ্ডে স্নান তুমি কর একবার ।
প্রত্যক্ষ হইবে তীর্থ পুষ্কর তোমার ॥
তাহা শুনি কুণ্ডে স্নান করে দ্বিজবর ।
দিব্যচক্ষু লভি দেখে সম্মুখে পুষ্কর ॥
ক্রন্দন করিয়া দ্বিজ পুষ্করে বলিল ।
আমা লাগি বড় ক্লেশ তোমার হইল ॥
পুষ্কর বলেন শুন দ্বিজ ভাগ্যবান ।
দূর হৈতে না আসিনু হেথা বিদ্যমান ॥
এই নবদ্বীপধাম সর্ব্বতীর্থ ময় ।
নবদ্বীপে সেবি হেথা থাকে তীর্থ চয় ॥
আমার স্বরূপ এক পাশ্চাত্যে প্রকাশ ।
নিজে আমি এই স্থানে নিত্য করি বাস ॥
শতবার কেহ সেই তীর্থে করি স্নান ।
যেই ফল পায় হেথা সেফল বিধান ॥
অতএব নবদ্বীপ ছাড়ি যেই জন ।
অন্যতীর্থ আশা করে সে মূঢ় দুর্জ্জন ॥
সর্ব্বতীর্থ ভ্রমি যদি হয় ফলোদয় ।
নবদ্বীপ তবে তার বাস স্থান হয় ॥
ঐ দেখ উচ্চ স্থান হট্টের সমান ।
কুরুক্ষেত্র ব্রহ্মাবর্ত্ত তথা বিদ্যমান ॥
সরস্বতী দৃষদ্বতী দুই পার্শ্বে তার ।
অতি শোভা পায় পুণ্য করয়ে বিস্তার ॥
ওহে বিপ্র গূঢ় কথা বলিব তোমায় ।
অতি অল্প কালে হবে আনন্দ হেথায় ॥
মায়াপুরে শচী গৃহে গৌরাঙ্গ সুন্দর ।
প্রকট হইয়া প্রেম বিলাবে বিস্তর ॥
এইসব স্থানে প্রভু ভক্তবৃন্দ লয়ে ।
সঙ্কীর্ত্তন রসে নাচিবেন মত্ত হয়ে ॥
সর্ব্ব অবতারে ছিলা যে যে ভক্তগণ ।
সকলে লইয়া প্রভু করিবে কীর্ত্তন ॥
প্রেম-বন্যা জলে সর্ব্ব জগত ভাসাবে ।
কুতার্কিক বিনা সবে মহাপ্রেম পাবে ॥
এই ধামনিষ্ঠা করি যেবা করে বাস ।
তারে মিলে গৌরপদ ওহে দিবদাস ॥
কোটি কোটি বর্ষ করি শ্রীকৃষ্ণ ভজন ।
তথাপি নামেতে রতি না পায় দুর্জ্জন ॥
গৌরাঙ্গ ভজিলে দুষ্টভাব দূর যায় ।
অল্প দিনে ব্রজধামে রাধা-কৃষ্ণ পায় ॥
নিজ সিদ্ধদেহ পায় সখীর আশ্রয় ।
নিজকুঞ্জ শ্রীযুগলসেবা তার হয় ॥
ওহে বিপ্র হেথা থাকি করহ ভজন ।
সপার্ষদে শ্রীগৌরাঙ্গ পাবে দরশন ॥
এই কথা বলি তীর্থরাজ গেল চলি ।
শুনিল আকাশ বাণী আইসে ধন্য কলি ॥
তুমি বিপ্র সেই কালে জন্মিবে আবার ।
শ্রীগৌর কীর্ত্তন প্রেমে দিবেত সাঁতার ॥
এত শুনি দিবদাস নিশ্চিন্ত হইল ।
এই কুণ্ডতীরে বসি ভজন করিল ॥
এসব পুরাণ কথা শ্রীজীবে কহিয়া ।
উচ্চহট্ট কুরুক্ষেত্রে প্রবেশিল গিয়া ॥
নিত্যানন্দ বলে হেথা সর্ব্বদেবগণ ।
কুরুক্ষেত্রে তীর্থ সহ কৈল আগমন ॥
ব্রহ্মাবর্ত্তে কুরুক্ষেত্রে যত তীর্থ ছিল ।
সর্ব্বতীর্থ আসি হেথা বিরাজ করিল ॥
পৃথূদক আদি করি সব হেথা বৈসে ।
সবে নবদ্বীপ সেবা করে অনায়াসে ॥
শতবর্ষ কুরুক্ষেত্রে বাসে যেই ফল ।
হেথা এক রাত্র বাসে লভে সে সকল ॥
প্রভু বলে হেথা বাস করি দেবগণ ।
হট্ট করি গৌর কথা করে আলোচন ॥
হট্টডাঙ্গা বলি নাম হইল ইহার ।
ইহার দর্শনে পায় প্রেম পারাবার ॥
এই এক সীমা জীব দেখ নদীয়ার ।
এবে চল যাই মোরা ভাগীরথী পার ॥
ভাগীরথী পার হয়ে মধ্যাহ্ণ সময় ।
কোলদ্বীপে নিত্যানন্দ হইল উদয় ॥
কুলিয়াপাহাড় পুরে যাইতে যাইতে ।
শ্রীজীবে নিতাইচাঁদ লাগিল কহিতে ॥
যে ক্রমে আইনু মোরা হয়ে গঙ্গাপার ।
সেই ক্রম সিদ্ধ ক্রম পরিক্রমা সার ॥
যবে প্রভু শ্রীচৈতন্য লয়ে নিজগণ ।
করিলেন শ্রীচৌদ্দমাদল সঙ্কীর্ত্তন ॥
কাজিরে শোধিতে প্রভু সন্ধ্যা আগমনে ।
মায়াপুর ছাড়ি চলে লয়ে ভক্তজনে ॥
সেইরাত্র ব্রহ্মরাত্র শীঘ্র নহে শেষ ।
এই ক্রমে মহাপ্রভু ভ্রমে নিজদেশ ॥
তারপর প্রতি একাদশী তিথি ধরি ।
ভ্রমিলা আমার প্রভু সঙ্কীর্ত্তন করি ॥
কভু পঞ্চক্রোশ ভ্রমে অন্তর্দ্বীপময় ।
কভু অষ্টক্রোশ ভ্রমে যেন মনে লয় ॥
নিজ গৃহ হৈতে বারকোণা ঘাট ছাড়ি ।
দীর্ঘিকা বেষ্টনে যায় শ্রীধরের বাড়ী ॥
তথাহৈতে অন্তর্দ্বীপ সীমা ভ্রমি আসে ।
পঞ্চক্রোশ পরিক্রমা হয় অনায়াসে ॥
সিমুলিয়া হয়ে কাজিগৃহে বেড়ি চলে ।
শ্রীধরে সম্ভাসি আইসে গাদিগাছা স্থলে ॥
মাজিদা হইতে হয় ভাগীরথী পার ।
পারডাঙ্গা ছিনাডাঙ্গা পুলিন বিস্তার ॥
ছাড়িয়া জাহ্ণবী পার হইয়া তখন ।
অষ্টক্রোশ ভ্রমি চলে আপন ভবন ॥
সিদ্ধ পরিক্রমা হয় পূর্ণ ষোলক্রোশ ।
সেই পরিক্রমা কৈলে প্রভুর সন্তোষ ॥
সেই পরিক্রমা আমি তোমারে করাই ।
ইহার সমান পরিক্রমা আর নাই ॥
বৃন্দাবন ষোলক্রোশ দ্বাদশ কানন ।
এই পরিক্রমা মধ্যে পাবে দরশন ॥
নবরাত্রে এই পরিক্রমা শেষ হয় ।
নবরাত্র বলি এর নাম শাস্ত্রে কয় ॥
পঞ্চক্রোশ পরিক্রমা একদিনে করে ।
রাত্রত্রয় অষ্ট ক্রোশ পরিক্রমা ধরে ॥
একরাত্র মায়াপুরে দ্বিতীয় গোদ্রুমে ।
পুলিনে তৃতীয় রাত্র এই ক্রমে ভ্রমে ॥
শুনি পরিক্রমা তত্ত্ব জীবমহাশয় ।
প্রেমেতে অধৈর্য্য হয়ে কতক্ষণ রয় ॥
নিতাই জাহ্ণবা পদ ছায়া আশ যার ।
নদীয়া মহিমা বর্ণে অকিঞ্চন ছার ॥

 


 

← Main page-এ ফিরে
← গ্রন্থাগারে ফিরে

 


শ্রীনবদ্বীপধাম
মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


অনন্তশ্রীবিভূষিত ওঁ বিষ্ণুপাদ পরমহংসকুলচূড়ামণি বিশ্ববরেণ্য জগদ্­গুরু শ্রীশ্রীমদ্ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের পদ্মমুখের হরিকথামৃত


এইগ্রন্থশিরোমণি শ্রীগুরুপাদপদ্ম ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের ইচ্ছা পূর্ণ করবার জন্য এবং তাঁর শ্রীচরণের তৃপ্তির জন্য তাঁর অহৈতুক কৃপায় শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠ হইতে প্রকাশিত হয় শ্রীমন্ মহাপ্রভুর শুভার্বিভাব তিথিতে শ্রীগৌরাব্দ ৫৩৪, বঙ্গাব্দ ১৪২৬, খৃষ্টাব্দ মার্চ্চ ২০২০ ।


সূচীপত্র:

শ্রীগৌরধাম ও শ্রীভক্তিবিনোদ

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য
(১) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের সাধারণ মাহাত্ম্য কথন
(২) শ্রীশ্রীগৌড়মণ্ডল ও শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের বাহ্যস্বরূপ ও পরিমাণ
(৩) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধাম পরিক্রমার সাধারণ বিধি
(৪) শ্রীজীবের আগমন ও শ্রীনিত্যানন্দ প্রভু তাঁহাকে শ্রীনবদ্বীপতত্ত্ব বলেন
(৫) শ্রীমায়াপুর ও শ্রীঅন্তর্দ্বীপের কথা
(৬) শ্রীগঙ্গানগর, শ্রীপৃথুকুণ্ড, শ্রীসীমন্তদ্বীপ, শ্রীবিশ্রামস্থানাদি দর্শন
(৭) শ্রীসুবর্ণবিহার ও শ্রীদেবপল্লী বর্ণন
(৮) শ্রীহরিহরক্ষেত্র, শ্রীমহাবারাণসী ও শ্রীশ্রীগোদ্রুমদ্বীপ বর্ণন
(৯) শ্রীমধ্যদ্বীপ ও নৈমিষ বর্ণন
(১০) শ্রীব্রাহ্মণপুষ্কর, শ্রীউচ্চহট্টাদি দর্শন ও পরিক্রমা-ক্রম বর্ণন
(১১) শ্রীশ্রীকোলদ্বীপ, শ্রীসমুদ্রগড়, শ্রীচম্পাহট্ট ও শ্রীজয়দেব-কথা বর্ণনা
(১২) শ্রীশ্রীঋতুদ্বীপ ও শ্রীরাধাকুণ্ড বর্ণন

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা
শ্রীল ভক্তিবিনোদ ঠাকুরের ভজনকুটির (স্বানন্দ-সুখদা-কুঞ্জ)
শ্রীনৃসিংহপল্লী
শ্রীকোলদ্বীপ


বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥