শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


—: শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য :—

চতুর্থ অধ্যায় :
শ্রীজীবের আগমন ও শ্রীনিত্যানন্দ প্রভু তাঁহাকে শ্রীনবদ্বীপতত্ত্ব বলেন

(শ্রীশ্রীল সচ্চিদানন্দ ভক্তিবিনোদ ঠাকুর রচিত)

 

জয় জয় নবদ্বীপচন্দ্র শচীসুত ।
জয় জয় নিত্যানন্দরায় অবধূত ॥
জয় জয় নবদ্বীপ সর্ব্ব ধাম সার ।
যথায় হইল শ্রীচৈতন্য অবতার ॥
সর্ব্ব তীর্থে বাস করি যেই ফল পাই ।
নবদ্বীপে লভি তাহা একদিনে ভাই ॥
সেই নবদ্বীপ পরিক্রমা বিবরণ ।
শাস্ত্র আলোচিয়া গাই শুন সাধু জন ॥
শাস্ত্রের লিখন আর বৈষ্ণব বচন ।
প্রভু আজ্ঞা এই তিন মম প্রাণধন ॥
এ তিনে আশ্রয় করি করিব বর্ণন ।
নদীয়া ভ্রমণ বিধি শুন সর্ব্বজন ॥
শ্রীজীবগোস্বামী যবে ছাড়িলেন ঘর ।
নদীয়া নদীয়া বলি ব্যাকুল অন্তর ॥
চন্দ্রদ্বীপ ছাড়ি তেঁহ যত পথ চলে ।
ভাসে দুই চক্ষু তাঁর নয়নের জলে ॥
হা গৌরাঙ্গ নিত্যানন্দ জীবের জীবন ।
কবে মোরে কৃপা করি দিবে দরশন ॥
হাহা নবদ্বীপধাম সর্ব্বধাম সার ।
কবে বা দেখিব আমি বলে বারবার ॥
কৈশোর বয়স জীব সুন্দর গঠন ।
বৈরাগ্যের পরাকাষ্ঠা অপূর্ব্ব দর্শন ॥
চলিয়া চলিয়া কতদিন মহাশয় ।
নবদ্বীপে উত্তরিল সদা প্রেমময় ॥
দূর হৈতে নবদ্বীপ করি দরশন ।
দণ্ডবৎ হয়ে পড়ে প্রায় অচেতন ॥
কতক্ষণ পরে নিজ চিত্ত করি স্থির ।
প্রবেশিল নবদ্বীপে পুলক শরীর ॥
বারকোণা ঘাটে আসি জিজ্ঞাসে সবারে ।
কোথা প্রভু নিত্যানন্দ দেখাও আমারে ॥
শ্রীজীবের ভাব দেখি কোন মহাজন ।
প্রভু নিত্যানন্দ যথা লয় ততক্ষণ ॥
হেথা প্রভু নিত্যানন্দ অট্ট অট্ট হাসি ।
শ্রীজীব আসিবে বলি অন্তরে উল্লাসী ॥
আজ্ঞা দিল দাসগণে শ্রীজীবে আনিতে ।
অনেক বৈষ্ণবে যায় জীবে সম্বোধিতে ॥
সাত্ত্বিক-বিকার-পূর্ণ জীবের শরীর ।
দেখি জীব বলি সবে করিলেন স্থির ॥
কেহ কেহ আগে গিয়া মহাপ্রেম ভরে ।
নিত্যানন্দ প্রভু আজ্ঞা বিজ্ঞাপন করে ॥
প্রভু নিত্যানন্দ নাম করিয়া শ্রবণ ।
ধরণীতে পড়ে জীব হয়ে অচেতন ॥
ক্ষণেক উঠিয়া বলে বড় ভাগ্য মম ।
প্রভু নিত্যানন্দ কৃপা পাইল অধম ॥
সে সব বৈষ্ণবগণে দণ্ডবৎ হয়ে ।
প্রণাম করয়ে জীব প্রফুল্ল হৃদয়ে ॥
বলে তুমি সবে মোরে হইলে সদয় ।
নিত্যানন্দ পদ পাই সর্ব্ব শাস্ত্রে কয় ॥
জীবের সৌভাগ্য হেরি কতেক বৈষ্ণব ।
চরণের ধূলি লয় করিয়া উৎসব ॥
সবে মেলি জীবে লয় নিত্যানন্দ যথা ।
বৈষ্ণবে বেষ্টিতে প্রভু কহে কৃষ্ণকথা ॥
প্রভু নিত্যানন্দের দেখিয়া দিব্যরূপ ।
জীবের শরীরে হয় ভাব অপরূপ ॥
কি অপূর্ব্বরূপ আজ হেরিনু বলিয়া ।
পড়িল ধরণীতলে অচেতন হৈয়া ॥
মহাকৃপাবশে প্রভু নিত্যানন্দরায় ।
জীবে উঠাইয়া লয় আপনার পায় ॥
ব্যস্ত হয়ে শ্রীজীবগোস্বামী দাঁড়াইল ।
করযুড়ি নিত্যানন্দে কহিতে লাগিল ॥
বিশ্বরূপ বিশ্বধাম তুমি বলরাম ।
আমি জীব কিবা জানি তব গুণগ্রাম ॥
তুমি মোর প্রভু নিত্য আমি তব দাস ।
তোমার চরণছায়া একমাত্র আশ ॥
তুমি যারে কর দয়া সেই অনায়াসে ।
শ্রীচৈতন্য পদ পায় প্রেমজলে ভাসে ॥
তোমার করুণা বিনা গৌর নাহি পায় ।
শত জন্ম ভজে যদি গৌরাঙ্গ হিয়ায় ॥
গৌর দণ্ড করে যদি তুমি রক্ষা কর ।
তুমি যারে দণ্ড কর গৌর তার পর ॥
অতএব প্রভু তব চরনকমলে ।
লইনু শরণ আমি সুকৃতির বলে ॥
তুমি কৃপা করি মোরে দেহ অনুমতি ।
শ্রীগৌরদর্শনে পাই গৌরে হউ রতি ॥
যবে রামকেলিগ্রামে শ্রীগৌরাঙ্গরায় ।
আমার পিতৃব্যদ্বয়ে লইলেন পায় ॥
সেইকালে শিশু আমি সজলনয়নে ।
হেরিলাম গৌররূপ সদা জাগে মনে ॥
শ্রীগৌরাঙ্গপদে পড়ি করিনু প্রণতি ।
শ্রীঅঙ্গ স্পর্শিয়া সুখ পাইলাম অতি ॥
সেই কালে গৌর মোরে কহিলা বচন ।
ওহে জীব কর তুমি শাস্ত্র অধ্যয়ন ॥
অধ্যয়ন সমাপিয়া নবদ্বীপে চল ।
নিত্যানন্দ শ্রীচরণে পাইবে সকল ॥
সেই আজ্ঞা শিরে ধরি আমি অকিঞ্চন ।
যথা সাধ্য বিদ্যা করিয়াছি উপার্জ্জন ॥
চন্দ্রদ্বীপে পড়িলাম সাহিত্যাদি যত ।
বেদান্ত আচার্য্য নাহি পাই মনোমত ॥
প্রভু আজ্ঞা ছিল মোরে বেদান্ত পড়িতে ।
বেদান্ত সম্মত কৃষ্ণভক্তি প্রকাশিতে ॥
আইলাম নবদ্বীপে তোমার চবণে ।
যেইরূপ আজ্ঞা হয় করি আচরণে ॥
আজ্ঞা হয় যাই ক্ষেত্রে প্রভুর চরণে ।
বেদান্ত পড়িব সার্ব্বভৌমের সদনে ॥
জীবের মধুর বাক্যে নিত্যানন্দরায় ।
জীবে কোলে করি কাঁদে ধৈর্য্য নাহি পায় ॥
বলে শুন ওহে জীব নিগূঢ় বচন ।
সর্ব্বতত্ত্ব অবগত রূপ সনাতন ॥
প্রভু মোরে আজ্ঞা দিল বলিতে তোমায় ।
ক্ষেত্রে নাহি যাও তুমি না রহ হেথায় ॥
তুমি আর রূপ সনাতন দুই ভাই ।
প্রভুর একান্ত দাস জানেন সবাই ॥
তোমা প্রতি আজ্ঞা এই বারাণসী গিয়া ।
বাচস্পতি নিকটেতে বেদান্ত পড়িয়া ॥
একেবারে যাহ তথা হৈতে বৃন্দাবন ।
তথা কৃপা করিবেন রূপ সনাতন ॥
রূপের অনুগ হয়ে যুগল-ভজন ।
কর তথা বেদান্তাদি শাস্ত্র-আলাপন ॥
ভাগবত শাস্ত্র হয় সর্ব্বশাস্ত্র সার ।
বেদান্তসূত্রের ভাষ্য করহ প্রচার ॥
সার্ব্বভৌমে কৃপা করি গৌরাঙ্গ শ্রীহরি ।
ব্রহ্মসূত্র ব্যাখ্যা কৈল ভাগবত ধরি ॥
সেই বিদ্যা সার্ব্বভৌম শ্রীমধুসূদনে ।
শিখাইল ক্ষেত্রধামে পরম যতনে ॥
সেই মধুবাচস্পতি প্রভু আজ্ঞা পেয়ে ।
আছে বারাণসীধামে দেখ তুমি যেয়ে ॥
বাহ্যে তেঁহ সম্প্রদায়ী বৈদান্তিক হয় ।
শাঙ্করী সন্ন্যাসী তাঁর নিকটে পড়য় ॥
ক্রমে ক্রমে সন্ন্যাসীগণেরে কৃপা করি ।
গৌরাঙ্গের ব্যাখ্যা শিক্ষা দেয় সূত্র ধরি ॥
পৃথক ভাষ্যের এবে নাহি প্রয়োজন ।
ভাগবতে কর সূত্র ভাষ্যেতে গণন ॥
কালে যবে ভাষ্যের হইবে প্রয়োজন ।
শ্রীগোবিন্দভাষ্য তবে হবে প্রকটন ॥
সার্ব্বভৌম স্বসম্পর্কে যেই গোপীনাথ ।
শুনিল প্রভুর ভাষ্য সার্ব্বভৌম সাথ ॥
কালে তেঁহ প্রভুর ইচ্ছায় জন্ম লয়ে ।
বলদেবাবেশে যাবে জয়পুর জয়ে ॥
তথা শ্রীগোবিন্দ বলে ভাষ্য প্রকাশিয়া ।
সেবিবে গৌরাঙ্গপদ জীবে নিস্তারিয়া ॥
এই সব গূঢ় কথা রূপ সনাতন ।
সকল কহিবে তোমা প্রতি দুইজন ॥
নিত্যানন্দ বাক্য শুনি শ্রীজীব গোঁসাই ।
কাঁদিয়া লোটায় ভূমে সংজ্ঞা আর নাই ॥
কৃপা করি প্রভু নিজ চরণযুগল ।
শ্রীজীবের শিবে ধরি অর্পিলেন বল ॥
জয় শ্রীগৌরাঙ্গ জয় নিত্যানন্দরায় ।
বলিয়া নাচেন জীব বৈষ্ণব সভায় ॥
শ্রীবাসাদি ছিল তথা যত মহাজন ।
জীবে নিত্যানন্দ কৃপা করি দরশন ॥
সবে নাচে শ্রীগৌরাঙ্গ নিত্যানন্দ বলি ।
মহাকলরবে তথা হয় হুলুস্থূলী ॥
কতক্ষণ পরে নৃত্য করি সম্বরণ ।
জীবে লয়ে নিত্যানন্দ বসিল তখন ॥
জীবের হইল বাসা শ্রীবাসঅঙ্গনে ।
সন্ধ্যাকালে আইল পুন প্রভু দরশনে ॥
নির্জ্জনে বসিয়া প্রভু গৌরগুণ গায় ।
শ্রীজীব আসিয়া পড়ে নিত্যানন্দ পায় ॥
যত্ন করি প্রভু তারে নিকটে বসায় ।
কর যোড় করি জীব স্বদৈন্য জানায় ॥
জীব বলে প্রভু মোরে করুণা করিয়া ।
নবদ্বীপধাম তত্ত্ব বলে বিবরিয় ॥
প্রভু বলে ওহে জীব বলিব তোমায় ।
অত্যন্ত নিগূঢ় তত্ত্ব রাখিবে হিয়ায় ॥
যথা তথা এবে ইহা না কর প্রকাশ ।
প্রকট লীলার অন্তে হইবে বিকাশ ॥
এই নবদ্বীপ হয় সর্ব্বধাম সার ।
শ্রীবিরজা ব্রহ্মধাম আদি হয়ে পার ॥
বৈকুণ্ঠের পর শ্বেতদ্বীপ শ্রীগোলক ।
তদন্তে গোকুল বৃন্দাবন কৃষ্ণলোক ॥
সেই লোক দুই ভাবে হয়ত প্রকাশ ।
মাধুর্য্য ঔদার্য্য ভেদে রসের বিকাশ ॥
মাধুর্য্যে ঔদার্য্য পুর্ণ রূপে অবস্থিত ।
ঔদার্য্যে মাধুর্য্য পুর্ণ রূপেতে বিহিত ॥
তথাপিও যে প্রকাশে মাধুর্য্য প্রদান ।
বৃন্দাবন বলি তাহা জানে ভাগ্যবান ॥
যে প্রকাশে ঔদার্য্য প্রধান নিত্য হয় ।
সেই নবদ্বীপধাম সর্ব্ব বেদে কয় ॥

বৃন্দাবন নবদ্বীপে নাহি কিছু ভেদ ।
রসের প্রকাশ ভেদে করয় প্রভেদ ॥
এই ধাম নিত্যসিদ্ধ চিন্ময় অনন্ত ।
জড়-বুদ্ধি জনে তার নাহি পায় অন্ত ॥
হলাদিনী প্রভাবে জীব ছাড়ি জড়-ধর্ম্ম ।
নিত্যসিদ্ধ জ্ঞান বলে পায় তার ধর্ম্ম ॥
সর্ব্ব নবদ্বীপ হয় চিন্ময় প্রকাশ ।
সেই পীঠে শ্রীগৌরাঙ্গ করেন বিলাস ॥
চর্ম্ম চক্ষে লোকে দেখে প্রপঞ্চ গঠন ।
মায়া আচ্ছাদিয়া রাখে নিত্য নিকেতন ॥
নবদ্বীপে মায়া নাই জড় দেশ কাল ।
কিছু তথা নাহি আছে জীবের জঞ্জাল ॥
কিন্তু কর্ম্ম-বন্ধ ক্রমে জীব মায়াবশে ।
নবদ্বীপধামে প্রাপঞ্চিক ভাবে পশে ॥
ভাগ্যক্রমে সাধু সঙ্গে প্রেমের উদয় ।
হয় যবে তবে দেখে বৈকুণ্ঠ চিন্ময় ॥
অপ্রাকৃত দেশ কাল ধাম দ্রব্য যত ।
অনায়াসে দেখে স্বীয় চক্ষে অবিরত ॥
এই ত কহিনু আমি নবদ্বীপ তত্ত্ব ।
বিচারিয়া দেখ জীব হয়ে শুদ্ধ সত্ত্ব ॥
নিতাই জাহ্ণবা পদে নিত্য যার আশ ।
গূঢ় তত্ত্ব করে ভক্তিবিনোদ প্রকাশ ॥

 


 

← Main page-এ ফিরে
← গ্রন্থাগারে ফিরে

 


শ্রীনবদ্বীপধাম
মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


অনন্তশ্রীবিভূষিত ওঁ বিষ্ণুপাদ পরমহংসকুলচূড়ামণি বিশ্ববরেণ্য জগদ্­গুরু শ্রীশ্রীমদ্ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের পদ্মমুখের হরিকথামৃত


এইগ্রন্থশিরোমণি শ্রীগুরুপাদপদ্ম ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের ইচ্ছা পূর্ণ করবার জন্য এবং তাঁর শ্রীচরণের তৃপ্তির জন্য তাঁর অহৈতুক কৃপায় শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠ হইতে প্রকাশিত হয় শ্রীমন্ মহাপ্রভুর শুভার্বিভাব তিথিতে শ্রীগৌরাব্দ ৫৩৪, বঙ্গাব্দ ১৪২৬, খৃষ্টাব্দ মার্চ্চ ২০২০ ।


সূচীপত্র:

শ্রীগৌরধাম ও শ্রীভক্তিবিনোদ

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য
(১) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের সাধারণ মাহাত্ম্য কথন
(২) শ্রীশ্রীগৌড়মণ্ডল ও শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের বাহ্যস্বরূপ ও পরিমাণ
(৩) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধাম পরিক্রমার সাধারণ বিধি
(৪) শ্রীজীবের আগমন ও শ্রীনিত্যানন্দ প্রভু তাঁহাকে শ্রীনবদ্বীপতত্ত্ব বলেন
(৫) শ্রীমায়াপুর ও শ্রীঅন্তর্দ্বীপের কথা

(৬) শ্রীগঙ্গানগর, শ্রীপৃথুকুণ্ড, শ্রীসীমন্তদ্বীপ, শ্রীবিশ্রামস্থানাদি দর্শন

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা
শ্রীনৃসিংহপল্লী
শ্রীকোলদ্বীপ


বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥