শ্রীশ্রীপ্রেমবিবর্ত্ত


১১। নবদ্বীপ-দীপক

 

শ্রীনবদ্বীপ বৃন্দাবন অভিন্ন

ব্রহ্মাণ্ডে ধরণী ধন্য, ধরায় গৌড়-ক্ষৌণী ধন্য ।

গৌড়ে নবদ্বীপ ধন্য দ্ব্যষ্টক্রোশ জগৎ মান্য ॥১॥

মধ্যে স্রোতস্বতী ধন্য ভাগীরথী বেগবতী ।

তাহাতে মিলেছে আসি’ শ্রীযমুনা সরস্বতী ॥২॥

তার পূর্ব্বতীরে সাক্ষাৎ গোলোক মায়াপুর ।

তথায় শ্রীশচীগৃহে শোভে গৌরাঙ্গঠাকুর ॥৩॥

যে ঠাকুর দ্বাপরের শেষ বৃন্দাবনে বনে ।

মহারাসক্রীড়া কৈল রাধিকাদি গোপী সনে ॥৪॥

পরকীয় মহারাস গোলোকের নিত্যধন ।

আনিল ব্রজের সহ নন্দযশোদানন্দন ॥৫॥

সেই ঠাকুর আবার নিজের যোগ-মায়াপুর ।

প্রপঞ্চে আনিল গৌড়ে রসাস্বাদ সুচতুর ॥৬॥

গৌরাবতারের হেতু

শ্রীকৃষ্ণলীলায় বাঞ্ছাত্রয় না হৈল পূরণ ।

শ্রীগৌরলীলায় পূর্ণ কৈল সে সুখ সাধন ॥৭॥

“মোরে প্রণয় করি’ রাধা পায় কিবা সুখ ।

মোর মাধুর্য-আস্বাদনে রাধার কত যে কৌতুক ॥৮॥

আমার অনুভবে রাধায় সৌখ্য কি প্রকার ।

নায়ক হঞা নাহি বুঝি এ সুখের সার ॥৯॥

অতএব রাধার ভাবকান্তি লঞা গৌর হব ।
কৃষ্ণমাধুর্যাদি ভক্তভাবে আস্বাদ পাইব” ॥১০॥

এত ভাবি’ কৃষ্ণ নিজধাম লঞা গৌড়-দেশে ।

নবদ্বীপে প্রকটিল স্বয়ং আনন্দ-আবেশে ॥১১॥

গৌরের ভজন-প্রণালীতে কৃষ্ণভজন

ওরে ভাই সব ছাড়ি’ বৈস নবদ্বীপপুরে ।

গৌরাঙ্গের অষ্টকাল ভজ, দুঃখ যাবে দূরে ॥১২॥

অষ্টকালে অষ্টপরকার কৃষ্ণলীলা-সার ।

গৌরোদিত ভাবে ভজ, পাবে প্রেম চমৎকার ॥১৩॥

কৃষ্ণ ভজিবারে যার একান্ত আছে মন ।

গৌড়ের অষ্টকালে ভজ কৃষ্ণরসধন ॥১৪॥

গৌরভাব নাহি জানে যে কৃষ্ণ ভজিতে চায় ।

অপ্রাকৃত কৃষ্ণতত্ত্ব তার কভু নাহি ভায় ॥১৫॥

আচার্য বর্ণাশ্রমে আবদ্ধ নহেন

কিবা বর্ণী, কিবাশ্রমী, কিবা বর্ণাশ্রমহীন ।

কৃষ্ণতত্ত্ব-বেত্তা যেই, সেই আচার্য প্রবীণ ॥১৬॥

অসদ্গুরুগ্রহণে সর্ব্বনাশ

আসল কথা ছেড়ে ভাই বর্ণে যে করে আদর ।

অসদ্​গুরু করি’ তার বিনষ্ট পূর্ব্বাপর ॥১৭॥

 


 

← ১০। জাতিকুল ১২। বৈষ্ণব-মহিমা →

 

সূচীপত্র:
১। মঙ্গলাচরণ
২। গ্রন্থরচনা
৩। প্রথম প্রণাম
৪। গৌরস্য গুরুতা
৫। বিবর্ত্তবিলাসসেবা
৬। জীব-গতি
৭। সকলের পক্ষে নাম
৮। কুটীনাটি ছাড়
৯। যুক্তবৈরাগ্য
১০। জাতিকুল
১১। নবদ্বীপ-দীপক
১২। বৈষ্ণব-মহিমা
১৩। শ্রীগৌরদর্শনের ব্যাকুলতা
১৪। বিপরীত বিবর্ত্ত
১৫। শ্রীনবদ্বীপে পূর্ব্বাহ্ণ-লীলা
১৬। পীরিতি কিরূপ ?
১৭। ভক্তভেদে আচারভেদ
১৮। শ্রীএকাদশী
১৯। নামরহস্যপটল
২০। নাম-মহিমা
বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥