ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিসুন্দর
গোবিন্দ দেবগোস্বামী মহারাজের
শ্রীব্যাসপূজা নিবেদন

(ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজ রচিত, ১৯৯৭)

 

আপনাকে জানাই কোটি দণ্ডবতৎ নতি ।
চিরদিন ওই পদে থাকে যেন মতি ॥

মায়া পাশে যদি ফাঁসি যে কোন সময় ।
তরিবার লাগি যেন, ডাকি গো তোমায় ॥

সাধু, গুরু, বৈষ্ণবের গানে, সুখ পাই ।
যখন যা খুশী মনে, তখনি তা গাই ॥

পাপ পুণ্য লাভ ক্ষতি, নাহিক বিচার ।
জানি, বৈষ্ণব কৃপাতে সব যাবে অনাচার ॥

তাঁদের গুণগান-শক্তি, মোর কভু নাই ।
তবু পাগলের মত, কি যে যেন গাই ॥

সাধু, গুরু, বৈষ্ণব, কৃষ্ণের প্রাণধন ।
তাঁদের পদ-জল-রেণু-মাগে মোর মন ॥

মনের পিপাসা বড় সাধু সনে বাস ।
সর্ব্বস্ব ত্যজিয়া তাই করি অভিলাষ ॥

তাঁদের চরণে কত কোটি পাপ করি ।
মন তবু পড়ে থাকে ওই পদ ধরি ॥

আরও কত বলে মন, কোটি দুঃখ সহি ।
জন্মে জন্মে যেন আমি, ওই পদে রহি ॥

হঠাৎ দেশে উঠল সারা, শহর থেকে সকল পাড়া,
বিচিত্র কুতূহলে ।
সকলে আজ আনন্দেতে, একত্রে সব উঠল মেতে,
নাচে গায় দলে দলে ॥

ভক্তগণ সব অবিরত, শ্রদ্ধাঞ্জলি দিচ্ছে কত,
শ্রীমঠেতে আসি ।
গৌড় দেশের হৃদয় মাঝে, যেন সকল, দুপুর, সাঁজে,
বাজছে মোহন বাঁশী ॥

শুভ ১৮ ই ডিসেম্বর, কৃষ্ণ-দ্বিতীয়া বুদ্ধবার,
বর্দ্ধমানের আকাশ করি আলো ।
বামুন পাড়ার বামুন ঘরে, জনম নিলা জীবের তরে,
অপূর্ব্ব সুন্দর সিশু মোহনিয়া ভালো ॥

শ্রীতরঙ্গিণী দেবী মাতা, নিতাই পদ, নিত্য পিতা,
শ্রীদেবকী-বসুদেব সম ।
গুরু রূপে নন্দকুমার, যেন কৃপা করিলা এবার,
জীবের নাশিবে রজঃ তম ॥

সেই শিশু আজ মহাজন, ভক্তি সুন্দর গোবিন্দ ধন,
জগতের অনন্ত গৌরব ।
ব্রহ্মাণ্ড ভোদিয়া গোলোক ধাম, সর্ব্বত্র প্রকাশ তোমার নাম,
হে প্রভু, তব সেবা-সৌরভ ॥

তোমার কোমল মুরতি আজ, গাঁথা রয় যেন হৃদয় মাঝ,
চিন্তিব ও পদ নিতি ।
ভক্ত সজ্জন মিলে কত, মহিমা রচিবে শত শত,
কে কত গাহিবে তব গীতি ॥

পাইয়া তব শীতল চরণ, মঙ্গলাকাঙ্ক্ষী করিবে বরণ,
পরাবে ফুলের মালা ।
জীবের লাগি ধরিলে কায়া, তোমার ভয়ে পালাবে মায়া,
জুড়াবে জগত জ্বালা ॥

রাজাসনের রাজা যেমন, তোমার শোভা আজকে তেমন,
রাজা মিছে, তুমি নিত্য সত্য ।
অগাধ তব শাস্ত্র জ্ঞানে, গোলোকের সেই নিত্য ধনে,
বিলাও ভরুক্ আর্ত্ত জীবের চিত্ত ॥

পরম্পরার সূত্র ধরে, আসিয়াছ মোদনী পরে,
প্রকাশিতে জীবোদ্ধার লীলা ।
কৃপার আধার গুরুমহারাজ, তোমাতে সর্ব্বশক্তি সঞ্চার,
করিয়া স্ব-সিংহাসন দিলা ॥

চির পঙ্কিল ধরণীতলে, শুদ্ধ ভকতি প্রকট করিলে—
যেন অপূর্ব্ব চিন্ময় সরোজ ।
তার সু-মধুর দিব্য গন্ধ, তোমার মাঝারে আঁকিছে ছন্দ,
বিলাবে সকলে প্রেম-বরজ ॥

তব কৃপাতরু-শীতল ছায়ায়, এ দুঃখীজন যেন ঠাঁই পায়,
ওহে দীনদয়াল ঠাকুর ।
তুমি নবোদিত নির্ম্মল ভাস্কর, দয়াময় দেব ভকতি সুন্দর,
ভাবিও তোমার কুকুর ॥

শ্রীভক্তিরক্ষক প্রভু শ্রীশ্রীধর, তোমাকে বানাল ভব কর্ণধার,
মো সম পতিত লাগি ।
তাই তব শুভ আবির্ভাব দিনে, গতি নাই ঐচরণ বিহনে,
এ পতিত কাঁদে কৃপা মাগী ॥

 


 

← গ্রন্থাগারে ফিরে

 

বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥