আমাদের শ্রীগুরুপরম্পরা :
শ্রীশ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজ শ্রীশ্রীল ভক্তিসুন্দর গোবিন্দ দেবগোস্বামী মহারাজ শ্রীশ্রীল ভক্তিরক্ষক শ্রীধর দেবগোস্বামী মহারাজ ভগবান্ শ্রীশ্রীল ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী গোস্বামী ঠাকুর
              প্রভুপাদ
“শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠে সূর্যাস্ত কখনই হয় না” :
আমাদের মঠের পরিচয় ও বৈশিষ্ট্য
 
আমাদের সম্পর্কে শ্রীউপদেশ শ্রীগ্রন্থাগার শ্রীগৌড়ীয় পঞ্জিকা ছবি প্রণামী ENGLISH
 

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


—: শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য :—

দ্বিতীয় অধ্যায় :
শ্রীশ্রীগৌড়মণ্ডল ও শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের বাহ্যস্বরূপ ও পরিমাণ

(শ্রীশ্রীল সচ্চিদানন্দ ভক্তিবিনোদ ঠাকুর রচিত)

 

জয় জয় নবদ্বীপচন্দ্র শচীসুত ।
জয় জয় নিত্যানন্দরায় অবধূত ॥
জয় জয় নবদ্বীপ সর্ব্বধাম সার ।
সে ধামের তত্ত্ব বর্ণে সাধ্য আছে কার ॥
নবদ্বীপধাম গৌড়মণ্ডল ভিতরে ।
জাহ্ণবী সেবিত হয়ে সদা শোভা করে ॥
এ গৌড়মণ্ডল একবিংশতি যোজন ।
মধ্য ভাগে গঙ্গাদেবী রহে অনুক্ষণ ॥
শতদলপদ্ম সম মণ্ডল আকার ।
মধ্যভাগে নবদ্বীপ অতিশোভা তার ॥
পঞ্চ ক্রোশ হয় তার কেশব আধার ।
পরিমল পূর্ণ পুষ্প যোজন চত্বার ॥
বাহির পাপড়ি তার শতদল হয় ।
একাধিক যোজন বিংশতি বিস্তারয় ॥
মণ্ডল পরিধি হয় সেই পরিমাণ ।
যোজন সপ্তক ব্যাস শাস্ত্রের বিধান ॥
ব্যাসার্দ্ধ প্রমাণ সার্দ্ধ তৃতীয় যোজন ।
মধ্যবিন্দু হৈতে তার হইবে গণন ॥
মধ্যবিন্দু নবদ্বীপধাম মধ্যস্থল ।
যোগপীঠ হয় তাহা চিন্ময় বিমল ॥
চিন্তামণিরূপ হয় এই গৌড় মণ্ডল ।
চিদানন্দময়ধাম চিন্ময় সকল ॥
জল ভূমি বৃক্ষ আদি সকলি চিন্ময় ।
সদা বিদ্যমান তথা কৃষ্ণশক্তিত্রয় ॥
স্বরূপশক্তির সেই সন্ধিনী প্রভাব ।
তার পরিণতি এই ধামের স্বভাব ॥
প্রভু লীলা পীঠ রূপে ধাম নিত্য হয় ।
অচিন্ত্য শক্তির কার্য্য প্রাপঞ্চিক নয় ॥
তবে যে এই ধামে দেখে প্রপঞ্চের সম ।
বদ্ধ জীবে তাহে হয় অবিদ্যা বিভ্রম ॥
মেঘাচ্ছন্ন চক্ষু দেখে সূর্য্য আচ্ছাদিত ।
দিবাকর নাহি কভু হয় মেঘাবৃত ॥
সেইরূপ এ গৌড়মণ্ডল চিদাকার ।
প্রাপঞ্চিক জন দেখে জড়ের বিকার ॥
নিত্যানন্দ কৃপা যার প্রতি কভু হয় ।
সে দেখে আনন্দধাম সর্ব্বত্র চিন্ময় ॥
গঙ্গা যমুনাদি তথা সদা বিদ্যমান ।
সপ্তপুরী প্রয়াগাদি আছে স্থানেস্থান ॥
সাক্ষাৎ বৈকুণ্ঠ তত্ত্ব এ গৌড়মণ্ডল ।
ভাগ্যবান জীব তাহা দেখে নিরমল ॥
স্বরূপশক্তির ছায়া মায়া বলি যারে ।
প্রভুর আজ্ঞায় নিজ প্রভাব বিস্তারে ॥
বহির্ম্মুখ জীব চক্ষু করে আবরণ ।
চিদ্ধাম প্রভাব সবে না পায় দর্শন ॥
এ গৌড়মণ্ডল যার বাস নিরন্তর ।
বড় ভাগ্যবান সেই সংসার ভিতর ॥
দেবগণে স্বর্গে থাকি দেখে সেই জনে ।
চতুর্ভুজ শ্যামকান্তি অপূর্ব্ব গঠনে ॥
ষোলক্রোশ নবদ্বীপধামবাসী যত ।
গৌরকান্তি সদা নামসংকীর্ত্তনে রত ॥
ব্রহ্মা আদি দেবগণে অন্তরীক্ষ হৈতে ।
নবদ্বীপবাসীগণে পূজে নানামতে ॥
ব্রহ্মা বলে কবে মোর হেন ভাগ্য হবে ।
নবদ্বীপে তৃণ কলেবর পাব যবে ॥
শ্রীগৌর চরণসেবা করে যত জন ।
তা সবার পদরেণু লভিব তখন ॥
হায় মোরে গৌরচন্দ্র বঞ্চনা করিয়া ।
ব্রহ্মাণ্ডের অধিপতি রাখিল করিয়া ॥
কবে মোর কর্ম্মগ্রন্থি হইবে ছেদন ।
অভিমান ত্যজি মোর শুদ্ধ হবে মন ॥
অধিকার বুদ্ধি মোর কবে হবে ক্ষয় ।
শুদ্ধদাস হয়ে পাব গৌর পদাশ্রয় ॥
দেবগণ ঋষিগণ রুদ্রগণ যত ।
স্থানেস্থানে নবদ্বীপে বৈসে অবিরত ॥
চিরকাল তপ করি জীবন কাটায় ।
তবু নিত্যানন্দ কৃপা সে সবে না পায় ॥
দেববুদ্ধি যত দিন নাহি যায় দূরে ।
যত দিন দৈন্য ভাব মনে নাহি স্ফূরে ॥
তত দিন শ্রীগৌর নিতাই কৃপা ধন ।
ব্রহ্মা শিব নাহি পায় করিয়া যতন ॥
এই সব কথা আগে হইবে প্রকাশ ।
যত্ন করি শুন ভাই করিয়া বিশ্বাস ॥
এ সব বিষয়ে ভাই তর্ক পরিহর ।
তর্ক সে অপার্থ অতি অমঙ্গলকর ॥
শ্রীচৈতন্যলীলা হয় গভীর সাগর ।
মোচাখোলা রূপ তর্ক তথায় ফাঁপর ॥
তর্ক করি এ সংসার তরিতে যে চায় ।
বিফল তাহার চেষ্টা কিছুই না পায় ॥
তর্কে জলাঞ্জলি দিয়া সাধু শাস্ত্র ধরে ।
অচিরে চৈতন্য লাভ সেই জন করে ॥
শ্রুতি স্মৃতি তন্ত্র শাস্ত্র অবিরত গায় ।
নদীয়া-মাহাত্ম্য নিত্যানন্দের আজ্ঞায় ॥
সেই সব শাস্ত্র পড় সাধু বাক্য মান ।
তবেত হইবে তব নবদ্বীপ জ্ঞান ॥
কলিকালে তীর্থ সব অত্যন্ত দুর্ব্বল ।
নবদ্বীপ তীর্থ মাত্র পরম প্রবল ॥
প্রভুর ইচ্ছায় সেই তীর্থ বহু দিন ।
অপ্রকট মহিমা আছিল স্ফুর্ত্তিহীন ॥
কলির প্রভাব যবে অত্যন্ত বাড়িল ।
অন্য তীর্থ স্বভাবত নিস্তেজ হইল ॥
জীবের মঙ্গল লাগি পুরুষপ্রধান ।
মনে মনে চিন্তা করি করিল বিধান ॥
পীড়া বুঝি বৈদ্যরাজ ঔষধ খাওয়ায় ।
কঠিন ঔষধ দেয় কঠিন পীড়ায় ॥
এবে কলি ঘোর হৈল রোগ হইল ভারি ।
কঠিন ঔষধ বিনা নিবারিতে নারি ॥
অতিশয় গোপনে রাখিনু যেই ধাম ।
অতিশয় গোপনে রাখিনু যেই নাম ॥
অতিশয় গোপনে রাখিনু যেই রূপ ।
প্রকাশ না কৈলে জীব তরিবে কিরূপ ॥
জীবত আমার দাস আমি তার প্রভু ।
আমি না তারিলে সেই না তরিবে কভু ॥
এই বলি শ্রীচৈতন্য হইল প্রকাশ ।
নিজ নাম নিজ ধাম লয়ে নিজ দাস ॥
প্রভুর প্রতিজ্ঞা এই হয় সর্ব্বকাল ।
তারিব সকল জীব ঘুচাব জজ্ঞাল ॥
ব্রহ্মার দুর্ল্লভ ধন বিলাব সংসারে ।
পাত্রাপাত্র না বাছিব এই অবতারে ॥
দেখিব কিরূপে কলি জীবে করে নাশ ।
নবদ্বীপধাম আমি করিব প্রকাশ ॥
সেই ধামে কলির ভাঙ্গিব বিষদাঁত ।
কীর্ত্তন করিয়া জীবে করি আত্মসাথ ॥
যত দূর মম নাম হইবে কীর্ত্তন ।
তত দূর হইবেত কলির দমন ॥
এই বলি গৌর হরি কলির সন্ধ্যায় ।
প্রকাশিল নবদ্বীপ স্বকীয় মায়ায় ॥
ছায়া সম্বরিয়া নিত্য স্বরূপ বিলাস ।
গৌরচন্দ্র গৌড়ভূমে করিল প্রকাশ ॥
এমন দয়ালু প্রভু যে জন না ভজে ।
এমন অচিন্ত্য ধাম যেই জন ত্যজে ॥
এই কলিকালে তার সম ভাগ্যহীন ।
না দেখি জগতে আর শোচনীয় দীন ॥
অতএব ছাড়ি ভাই অন্য বাঞ্ছা রতি ।
নবদ্বীপ ধামে মাত্র হও একমতি ॥
জাহ্ণবী নিতাই পদ ছায়া যার আশ ।
সে ভক্তিবিনোদ করে এতত্ত্ব প্রকাশ ॥

 


 

← Main page-এ ফিরে
← গ্রন্থাগারে ফিরে

 


শ্রীনবদ্বীপধাম
মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


অনন্তশ্রীবিভূষিত ওঁ বিষ্ণুপাদ পরমহংসকুলচূড়ামণি বিশ্ববরেণ্য জগদ্­গুরু শ্রীশ্রীমদ্ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের পদ্মমুখের হরিকথামৃত


এইগ্রন্থশিরোমণি শ্রীগুরুপাদপদ্ম ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের ইচ্ছা পূর্ণ করবার জন্য এবং তাঁর শ্রীচরণের তৃপ্তির জন্য তাঁর অহৈতুক কৃপায় শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠ হইতে প্রকাশিত হয় শ্রীমন্ মহাপ্রভুর শুভার্বিভাব তিথিতে শ্রীগৌরাব্দ ৫৩৪, বঙ্গাব্দ ১৪২৬, খৃষ্টাব্দ মার্চ্চ ২০২০ ।


সূচীপত্র:

শ্রীগৌরধাম ও শ্রীভক্তিবিনোদ

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য
(১) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের সাধারণ মাহাত্ম্য কথন
(২) শ্রীশ্রীগৌড়মণ্ডল ও শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের বাহ্যস্বরূপ ও পরিমাণ
(৩) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধাম পরিক্রমার সাধারণ বিধি
(৪) শ্রীজীবের আগমন ও শ্রীনিত্যানন্দ প্রভু তাঁহাকে শ্রীনবদ্বীপতত্ত্ব বলেন
(৫) শ্রীমায়াপুর ও শ্রীঅন্তর্দ্বীপের কথা
(৬) শ্রীগঙ্গানগর, শ্রীপৃথুকুণ্ড, শ্রীসীমন্তদ্বীপ, শ্রীবিশ্রামস্থানাদি দর্শন
(৭) শ্রীসুবর্ণবিহার ও শ্রীদেবপল্লী বর্ণন
(৮) শ্রীহরিহরক্ষেত্র, শ্রীমহাবারাণসী ও শ্রীশ্রীগোদ্রুমদ্বীপ বর্ণন
(৯) শ্রীমধ্যদ্বীপ ও নৈমিষ বর্ণন
(১০) শ্রীব্রাহ্মণপুষ্কর, শ্রীউচ্চহট্টাদি দর্শন ও পরিক্রমা-ক্রম বর্ণন
(১১) শ্রীশ্রীকোলদ্বীপ, শ্রীসমুদ্রগড়, শ্রীচম্পাহট্ট ও শ্রীজয়দেব-কথা বর্ণনা
(১২) শ্রীশ্রীঋতুদ্বীপ ও শ্রীরাধাকুণ্ড বর্ণন
(১৩) শ্রীবিদ্যানগর ও শ্রীজহ্ণুদ্বীপ বর্ণন

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা
শ্রীল ভক্তিবিনোদ ঠাকুরের ভজনকুটির (স্বানন্দ-সুখদা-কুঞ্জ)
শ্রীনৃসিংহপল্লী
শ্রীকোলদ্বীপ


বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥