আমাদের শ্রীগুরুপরম্পরা :
শ্রীশ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজ শ্রীশ্রীল ভক্তিসুন্দর গোবিন্দ দেবগোস্বামী মহারাজ শ্রীশ্রীল ভক্তিরক্ষক শ্রীধর দেবগোস্বামী মহারাজ ভগবান্ শ্রীশ্রীল ভক্তি সিদ্ধান্ত সরস্বতী গোস্বামী ঠাকুর
              প্রভুপাদ
“শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠে সূর্যাস্ত কখনই হয় না” :
আমাদের মঠের পরিচয় ও বৈশিষ্ট্য
 
আমাদের সম্পর্কে শ্রীউপদেশ শ্রীগ্রন্থাগার শ্রীগৌড়ীয় পঞ্জিকা ছবি প্রণামী ENGLISH
 

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


—: শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য :—

দ্বাদশ অধ্যায় : শ্রীশ্রীঋতুদ্বীপ ও শ্রীরাধাকুণ্ড বর্ণন

(শ্রীশ্রীল সচ্চিদানন্দ ভক্তিবিনোদ ঠাকুর রচিত)

 

জয় শ্রীচৈতন্যচন্দ্র, জয় প্রভু নিত্যানন্দ,
জয়াদ্বৈত জয় গদাধর ।
শ্রীবাসাদি ভক্ত জয়, জয় জগন্নাথালয়,
জয় নবদ্বীপ ধামবর ॥
প্রভাত হইল রাত্র, ভক্তগণ তুলে গাত্র,
শ্রীগৌর নিতাই চাঁদে ডাকে ।
ভক্তসহ নিত্যানন্দ, চলে ভজি পরানন্দ,
চম্পাহট্ট পশ্চাতেতে রাখে ॥
তথা হৈতে বাণীনাথ, চলে নিত্যানন্দ সাথ,
বলে হেন দিন কবে পাব ।
নিতাই চাঁদের সঙ্গে, পরিক্রমা করি রঙ্গে,
মায়াপুর প্রভু গৃহে যাব ॥
দেখিতে দেখিতে তবে, রাতুঃপুর চলে সবে,
দেখি সেই নগরের শোভা ।
প্রভু নিত্যানন্দ বলে, ঋতুদ্বীপে আইল চলে,
এই স্থানে অতি মনোলোভা ॥
বৃক্ষ সব নতশির, পবন বহয়ে ধীর,
কুসুম ফুটেছে চারিভিত ।
ভৃঙ্গের ঝঙ্কার রব, কুসুমের গন্ধাসব,
মাতায় পথিকগণ চিত ॥
বলিতে বলিতে রায়, হৈল পাগলের প্রায়,
বলে শিঙ্গা আন শীঘ্রগতি ।
বৎসগণ যায় দূরে, কানাই নিদ্রিতপুরে,
এখন না আইসে শিশুমতি ॥
কোথায় সুবল দাম, আমি একা বলরাম,
গোচারণে যাইতে না পারি ।
কানাই কানাই বলি, ডাক ছাড়ে মহাবলী,
লাফ মারে হাত দুই চারি ॥
সে ভাব দর্শন করি, ভক্তগণ ত্বরা করি,
নিবেদয় নিতাইয়ের পায় ।
ওহে প্রভু নিত্যানন্দ, ভাই তব গৌরচন্দ্র,
নাহি এবে আছেন হেথায় ॥
সন্ন্যাস করিয়া হরি, গেল নীলাচলোপরি,
আমাদের কাঙ্গাল করিয়া ।
তাহা শুনি নিত্যানন্দ, হইলেন নিরানন্দ,
কাঁদি লোটে ভূমেতে পড়িয়া ॥
কি দুঃখে কানাই ভাই, আমা সবে ছাড়ি যাই,
সন্ন্যাসী হইল নীলাচলে ।
এজীবন না রাখিব, যমুনায় ঝাঁপ দিব,
বলি অচেতন সেই স্থলে ॥
নিত্যানন্দে মহাভাব, করি সবে অনুভাব,
হরিনাম সঙ্কীর্ত্তন করে ।
চারিদণ্ড দিন হৈল, নিত্যানন্দ না উঠিল,
ভক্ত সব গৌর গীত ধরে ॥
গৌরাঙ্গের নাম শুনি, নিতাই উঠে অমনি,
বলে এই রাধাকুণ্ড স্থান ।
হেথা ভক্ত সঙ্গে করি, অপরাহ্নে গৌরহরি,
করিতেন কীর্ত্তন বিধান ॥
হেথা ছয় ঋতু মেলি, গৌরাঙ্গ কীর্ত্তনকেলি,
পুষ্টকৈল শোভা বিস্তারিয়া।
রাধাকুণ্ড ব্রজে যেই, ঋতুদ্বীপ হেথা সেই,
ভক্ত হেথা মজে প্রেম পিয়া ॥
দেখ শ্যামকুণ্ড শোভা, জগজ্জন-মনোলোভা,
সখীগণ কুঞ্জ নানাস্থানে ।
হেথা অপরাহ্নে গোরা, সঙ্কীর্ত্তনে হয়ে ভোরা,
তুষিলেন সবে প্রেমদানে ॥
এস্থান সমান ভাই, ত্রিজগতে নাহি পাই,
ভক্তের ভজন স্থান জান ।
হেথায় বসতি যার, প্রেমধন লাভ তার,
সুশীতল হয় তার প্রাণ ॥
সে দিন সে স্থানে থাকি, শ্রীগৌরাঙ্গ নাম ডাকি,
প্রেমে মগ্ন সর্ব্ব ভক্তগণ ।
ঋতুদ্বীপে সবে বসি, ভজে শ্রীচৈতন্য শশী,
রাত্রদিন করিল যাপন ॥
নাচিতে নাচিতে তবে, নিত্যানন্দ চলে যবে,
শ্রীবিদ্যানগরে উপনীত ।
বিদ্যানগরের শোভা, মুনিজন মনলোভা,
ভক্তগণ দেখি প্রফুল্লিত ॥
নিতাই জাহ্ণবা পদ যে জনার সুসম্পদ,
সে ভক্তিবিনোদ অকিঞ্চন ।
নদীয়া মাহাত্ম্য গায়, ধরি ভক্তজন পায়,
যাচে মাত্র কৃষ্ণভক্তি ধন ॥

 


 

← Main page-এ ফিরে
← গ্রন্থাগারে ফিরে

 


শ্রীনবদ্বীপধাম
মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা


অনন্তশ্রীবিভূষিত ওঁ বিষ্ণুপাদ পরমহংসকুলচূড়ামণি বিশ্ববরেণ্য জগদ্­গুরু শ্রীশ্রীমদ্ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের পদ্মমুখের হরিকথামৃত


এইগ্রন্থশিরোমণি শ্রীগুরুপাদপদ্ম ওঁ বিষ্ণুপাদ শ্রীল ভক্তিনির্ম্মল আচার্য্য মহারাজের ইচ্ছা পূর্ণ করবার জন্য এবং তাঁর শ্রীচরণের তৃপ্তির জন্য তাঁর অহৈতুক কৃপায় শ্রীচৈতন্য-সারস্বত মঠ হইতে প্রকাশিত হয় শ্রীমন্ মহাপ্রভুর শুভার্বিভাব তিথিতে শ্রীগৌরাব্দ ৫৩৪, বঙ্গাব্দ ১৪২৬, খৃষ্টাব্দ মার্চ্চ ২০২০ ।


সূচীপত্র:

শ্রীগৌরধাম ও শ্রীভক্তিবিনোদ

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য
(১) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের সাধারণ মাহাত্ম্য কথন
(২) শ্রীশ্রীগৌড়মণ্ডল ও শ্রীশ্রীনবদ্বীপধামের বাহ্যস্বরূপ ও পরিমাণ
(৩) শ্রীশ্রীনবদ্বীপধাম পরিক্রমার সাধারণ বিধি
(৪) শ্রীজীবের আগমন ও শ্রীনিত্যানন্দ প্রভু তাঁহাকে শ্রীনবদ্বীপতত্ত্ব বলেন
(৫) শ্রীমায়াপুর ও শ্রীঅন্তর্দ্বীপের কথা
(৬) শ্রীগঙ্গানগর, শ্রীপৃথুকুণ্ড, শ্রীসীমন্তদ্বীপ, শ্রীবিশ্রামস্থানাদি দর্শন
(৭) শ্রীসুবর্ণবিহার ও শ্রীদেবপল্লী বর্ণন
(৮) শ্রীহরিহরক্ষেত্র, শ্রীমহাবারাণসী ও শ্রীশ্রীগোদ্রুমদ্বীপ বর্ণন
(৯) শ্রীমধ্যদ্বীপ ও নৈমিষ বর্ণন
(১০) শ্রীব্রাহ্মণপুষ্কর, শ্রীউচ্চহট্টাদি দর্শন ও পরিক্রমা-ক্রম বর্ণন
(১১) শ্রীশ্রীকোলদ্বীপ, শ্রীসমুদ্রগড়, শ্রীচম্পাহট্ট ও শ্রীজয়দেব-কথা বর্ণনা
(১২) শ্রীশ্রীঋতুদ্বীপ ও শ্রীরাধাকুণ্ড বর্ণন
(১৩) শ্রীবিদ্যানগর ও শ্রীজহ্ণুদ্বীপ বর্ণন

শ্রীনবদ্বীপধাম মাহাত্ম্য-মুক্তা-মালা
শ্রীল ভক্তিবিনোদ ঠাকুরের ভজনকুটির (স্বানন্দ-সুখদা-কুঞ্জ)
শ্রীনৃসিংহপল্লী
শ্রীকোলদ্বীপ


বৃক্ষসম ক্ষমাগুণ করবি সাধন । প্রতিহিংসা ত্যজি আন্যে করবি পালন ॥ জীবন-নির্ব্বাহে আনে উদ্বেগ না দিবে । পর-উপকারে নিজ-সুখ পাসরিবে ॥